রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৬:৪৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কোটা আন্দোলন: নোয়াখালীতে ছাত্রলীগের সাথে আন্দোলনকারীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন সরকারের নির্দেশনায় আন্দোলন দমনের চেষ্টা চলছে আইনমন্ত্রী কোটা সংস্কারের ব্যাপারে নীতিগতভাবে একমত সরকার ভারতীয় ভিসা সেন্টার বন্ধ সারা দেশে মোবাইল ইন্টারনেট বিড়ম্বনা রামপুরায় পুলিশের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক সংঘর্ষ, টিয়ারশেল-সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ মহাখালীতে রেলপথ অবরোধ, ঢাকার সঙ্গে সারাদেশের ট্রেন চলাচল বন্ধ নোবিপ্রবির শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা, হল না ছাড়তে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ঢাকা কলেজের সামনে পড়ে থাকা মরদেহ ‘ছাত্রলীগ কর্মী’ সবুজের সিটি এলাকার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা
ঘোষণাঃ
বহুল প্রচারিত বঙ্গবাজার পত্রিকায় আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে আজই যোগাযোগ করুন,এছাড়াও আপনার আশেপাশে ঘটে যাওয়া কোন ঘটনা, দুর্ঘটনা, দুর্নীতি, ভালো খবর, জন্মদিনের শুভেচ্ছা, নির্বাচনি প্রচারণা, হারানো সংবাদ, প্রাপ্তি সংবাদ, সংর্বধনা, আপনার সন্তানের লেখা কবিতা, ছড়া,গান প্রকাশ করতে যোগাযোগ করুন। ❤️দেশ সেরা পত্রিকা হতে পারে আপনার সহযাত্রী ❤️

তরুন কবি “রাজের” কবিতা -“শখের এক জোড়া জুতো”

  • বঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ প্রকাশিত শনিবার, ৭ মে, ২০২২
  • ১৭৭ বার পড়া হয়েছে

কবিতা -শখের এক জোড়া জুতো

এই যে ছোট্ট খুকি,
একটু এদিকে এসো তো,”মা”
বাঃ তুমি দেখতে ভীষণ মিষ্টি !
তোমার নাম যেন কী ?
– স্যার, জরিনা।
আচ্ছা বেশ নাম তো
কোথায় যাচ্ছো ?
-“বুড়িমার জন্য ওষুধ কিনতে? ”
আচ্ছা!থাকো যেন কোথায়?
-ঐ যে কুড়িল বস্তিতে!
কী করা হয়?
স্কুল – টিস্কুল যাও কি?
-জরিনা মুচকি হাসি দিয়ে বলল, “না স্যার আমি একজন টোকাই, কাগজ কুড়াই।”
আহারে! কী শুনলাম।
বাবা- মা কী করেন?
– “জানিনা,স্যার। ”
এ আবার কেমন কথা রে, বাবা !
জানো-না বাবা মায়ের কথা।
– “শুনেছি জন্মের পরে ডাস্টবিনে আমাকে কুড়িয়ে পেয়েছেন,বুড়িমা? ”

ও তাই বুঝি। সরি! সরি!- ভেরি সরি, জরিনা
এতো আমি জানতাম না।
তাই মনে কষ্ট নিওনা।
আচ্ছা, তোমার বুড়িমা করে কী?
-“স্যার, আগে ভিক্ষা করতেন। এখন অসুস্থ। আমি কাগজ কুড়িয়ে যা পাই – তাই দিয়ে খাই।
আহারে! কী নিদারুণ কষ্ট
তা কাগজ কুড়িয়ে দিনে আসে কতো?
– ভাগ্য ভালো হলে ধরুন -এক হতে ডের শত ? কখনো বৃষ্টি বাদল দিনে যদি না পারি কাগজ কুড়াতে, সেদিন পাইনা খেতে।

শুনে হুহু করে কেঁদে উঠে মন-করি অশ্রু বিসর্জন।
হাতে কিছু গুজে দিয়ে টাকা-
ও আমার পায়ের শখের জুতো জোড়া – করিলাম সম্প্রদান।
সে তা পেয়ে মহাখুশি,
করিল গ্রহন দিয়ে মিষ্টি হাসি।
তারপর দিল এক ভৌ- “দৌড় ”
আমি ডাকলাম – জরিনা, এই জরিনা-এদিকে একটু শোন।
কে শুনে কার কথা?
দৌড়াচ্ছে সে – একহাতে টাকা,
ও অন্য হাতে নিয়ে জুতো জোড়া।
আওয়াজ আসিল কানে ভেসে –
বুড়িমা, আজ একজোড়া জুতা পেয়েছি তোমার তরে-
আমিও খুশি – মনে মনে হাসি,
ভেবে জরিনার বুড়িমার কথা –
জানিনা কতো দিন পরে জুটবে তার পায়ে জুতা জোড়া।
আমি না হয় কিনবো
আরেক নতুন জুতো জোড়া।
কিন্তু কিনতু কিনতে পারবে কি?
জরিনার মতো যারা।

এই ধরনের আরও খবর

Advertising

আর্কাইভ

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন এখানে

জেলা প্রতিনিধি হতে যোগাযোগ করুন

সপ্তাহের সেরা ছবি

© All rights reserved © 2022 bongobazarpatrika.com
Theme Download From ThemesBazar.Com