শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০১:১২ অপরাহ্ন
ঘোষণাঃ
বহুল প্রচারিত বঙ্গবাজার পত্রিকায় আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে আজই যোগাযোগ করুন,এছাড়াও আপনার আশেপাশে ঘটে যাওয়া কোন ঘটনা, দুর্ঘটনা, দুর্নীতি, ভালো খবর, জন্মদিনের শুভেচ্ছা, নির্বাচনি প্রচারণা, হারানো সংবাদ, প্রাপ্তি সংবাদ, সংর্বধনা, আপনার সন্তানের লেখা কবিতা, ছড়া,গান প্রকাশ করতে যোগাযোগ করুন। ❤️দেশ সেরা পত্রিকা হতে পারে আপনার সহযাত্রী ❤️

ক্রেতা সংকটে বিপাকে তরমুজ বিক্রেতারা

  • বঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ প্রকাশিত সোমবার, ১ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৩ বার পড়া হয়েছে

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের উলিপুরে তরমুজের দাম অর্ধেকে নামলেও তেমন দেখা নেই ক্রেতার। অলস সময় পার করতে দেখা যায় বিক্রেতারা। মার্চের শুরুতে প্রতি কেজি তরমুজ বিক্রি হয়েছে ১০০ টাকা দরে। রমজান শুরু হওয়ার পর সে দাম ৮০ টাকায় নামে। কিন্তু বেশি দামের পাশাপাশি অপরিপক্ব হওয়ায় তরমুজে আগ্রহ কম ছিল সাধারণের। এর মধ্যে ফেসবুকে তরমুজ ‘বয়কটের’ ডাক আসে। ফলে ফলটির বিকিকিনি কমে যায় আরও। মাত্র দশ থেকে পনেরো দিনের ব্যবধানে সেই তরমুজের দাম নেমে আসে অর্ধেকে। কিন্তু তরমুজের দোকান গুলোতে ক্রেতা শূন্য। আশানুরূপ বিক্রি না থাকায় চিন্তিত ব্যাবসায়ীরা। তরমুজের দাম যেমন কমেছে তেমই আমদানিও বেড়েছে।

রবিবার (৩১ মার্চ) উপজেলার পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্র গবার মোড় সহ বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে দেখা যায়, দোকানিরা তরমুজের পসরা সাজিয়ে বসে আছেন ক্রেতার অপেক্ষায়। তরমুজের দাম অর্ধেকে নামলেও আশানুরূপ বিক্রি হচ্ছেনা তরমুজের। অলস সময় পার করছেন তারা। রমজান ও দাবদাহের কারণে কিছুদিন আগেও তরমুজ প্রতি কেজিতে বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকায়। আর এখন তা ৩৫ থেকে ৪০ টাকায নামলেও নিতে চাচ্ছেন না ক্রেতারা। তরমুজের দাম যখন বেশি ছিলো তখনও ক্রেতা দরদাম করে চলে যেতো। এখন দাম অর্ধেকে নেমেছে তারপরেও দরদাম করে চলে যাচ্ছেন ক্রেতারা। এদিকে ক্রেতারা বলেন, গত এক সপ্তাহ আগেও  তরমুজের যে দাম ছিল, চলতি সপ্তাহে তার অর্ধেকে নেমে এসেছে। রমজানের শুরুতে তরমুজ কিনতে না পারলেও এখন হাতের লাগালে পাওয়া যাচ্ছে। তার পরেও তরমুজ কেনার প্রতি তেমন আগ্রহ নেই। কারণ তরমুজ ছাড়াও ইফতার করা যায়।

আবার ব্যবসায়ীরা বলছেন, হঠাৎ বৃষ্টির কারণে জমিতে অনেক তরমুজ নষ্ট হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। লোকসানের ভয়ে কৃষকরা পরিপক্ক হওয়ার আগেই তরমুজ বাজারে তুলছেন। তাই আগের তুলনায় দাম অনেকটা কম। আবার দাম কমে যাওয়ায় উৎপাদন খরচ না উঠায় অনেক কৃষক তরমুজ তুলছেন না। তাই এখন জমিতেই পঁচে যাচ্ছে তরমুজ। এধরণের সমস্যার কারণে  বিপাকে পড়েছি আমাদের মত ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীরা।

উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের ঘোলদার পাড় এলাকা থেকে তরমুজ ক্রয় করতে আসা আনিছুর রহমান (৩৫) বলেন, রমজানের শুরুতে তরমুজের দাম বেশি থাকায় তখন কিনতে পারিনি। এখন যদিও অর্ধেক দামে নেমেছে তারপরও তরমুজ কেনার প্রতি আগ্রহ নেই। তার পরেও একটা তমুজ ৩৫ টাকা কেজি দরে ক্রয় করলাম।

থেতরাই ইউনিয়নের হারুনেফড়া এলাকা থেকে তরমুজ ক্রয় করতে আসা নুপুর আক্তার বলেন, রমজানের শুরুতে দাম বেশি থাকায় তরমুজ দিয়ে ইফতার করিনি। আবার ফেসবুকে দেখেছি তরমুজ বয়কট করো। বয়কট করার কারণে এখন তরমুজের দাম অর্ধেকে নেমেছে। তাই আজ ৩৫ টাকা কেজিতে একটা তরমুজ ক্রয় করলাম।

পৌর শহরের গবার মোড় এলাকার তরমুজ বিক্রেতা শ্রী উজ্জ্বল সরকার বলেন, গত কয়েক দিন ধরে ফলটির দাম কমেছে। তরমুজের আমদানি বেশি হওয়ায় তরমুজের দাম কমেছে। বেচাকেনা বেশি না থাকায় দামটা পাওয়া যাচ্ছে না। আদমদানি বেশি হলে দাম আরও কমবে বলেও জানান এই বিক্রেতা।

এনামুল হক নামের আরেক তরমুজ বিক্রেতা বলেন, ক্রেতাদের আগ্রহ কম থাকায় তরমুজের বেচাকেনা খুব কম। গত সপ্তাহ ধরে ক্রেতা কম থাকায় দাম কমেছে। তবে তরমুজের আগে আমদানি কম ছিল যার কারণে তখন দাম কিছুটা বেশি ছিল। এখন আমদানি বেশি দামও কমেছে প্রায় অর্ধেক তার পরেও ক্রেতা নেই।

পাইকেরিতে তরমুজ বিক্রেতা হবিবর রহমান (৫৫) বলেন, রমজানের শুরুতে তরমুজের দাম বেশি থাকায় আমদানি কমেছিল। এখন তরমুজের দাম অর্ধেকে নামলেও আশানুরূপ হচ্ছেনা বিক্রি। তিনি জানান, গত বছর ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি থাকলেও ক্রেতার উপছে পড়া ভীড় দেখা গেছে। এবার তার উল্টো হয়েছে। রমজান মাস তরমুজ বিক্রির হিরিক পড়ে যেতো। দিনে তরমুজ বিক্রি হবার কথা ছিলো ৮০ থেকে ৯০ মণ। এখন দিনে বিক্রি হচ্ছে মাত্র ২০ থেকে ৩০ মণ। যা অর্ধেকেরও কম। তাতে লোকসানের মুখে পড়তে হচ্ছে সকল তরমুজ ব্যবসায়ীদের।

এই ধরনের আরও খবর

Advertising

আর্কাইভ

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন এখানে

জেলা প্রতিনিধি হতে যোগাযোগ করুন

সপ্তাহের সেরা ছবি

© All rights reserved © 2022 bongobazarpatrika.com
Theme Download From ThemesBazar.Com